হান্নান সরকার, পার্বত্য চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

রাঙামাটি পার্বত্য জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলার ৩৬নং দুর্গম সাজেক ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বামে বাইবাছড়া গ্রামের কিনা চান চাকমা ও তার সহধর্মিনী সামাদেবি চাকমার ছোট কুপড়ি ঘরটি গত ৪ মে ২০২১ খ্রিঃ (মঙ্গলবার) পার্শ্ববর্তী জুমের আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যায়। বৃদ্ধ কিনা চাঁন চাকমাও তার সহধর্মিনী সামাদেবি চাকমা বাড়িটি পুরে যাওয়ার সময় কোন রকম তারা প্রাণে বেঁচে যায়। তবে বাড়ির আবাসপত্র সহ কোনকিছুই রক্ষা করতে পারেনি। বর্ষার মৌসুমে ঘর ছাড়া থাকতে হচ্ছে এই বৃদ্ধা দম্পতিকে!

বিজ্ঞবানদের নিকট সাহায্য চেয়েও এখন পর্যন্ত মেলেনি সাহায্য। জাতির অধিকারের দোহাই দিয়ে খুনাখুনি ও চাঁদাবাজি করা জেএসএস, ইউপিডিএফ এই দুঃসময়ে এগিয়ে আসেনি। অথচ এরাই নাকি আবার নিজেদেরকে জাতির কর্ণাধার দাবি করে!

পার্বত্য চট্টগ্রামে জুমচাষের নামে হাজার হাজার এক পাহাড় ভূমি আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। এতে গাছপালা, কীটপতঙ্গ সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এটা পরিবেশের ভারসাম্যের জন্য মারাত্মক হুমকি৷ তবুও প্রথাগত নিয়ম ও ঐতিহ্যের দোহাই দিয়ে বছরের পর বছর জুমচাষের নামে পাহাড় পুড়িয়ে পরিবেশের ক্ষতি করা সাধন করা হয়। আর এটাকে সমর্থন করে একশ্রেণীর মানুষ!

By admin

মতামত

x