খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলার তিনটহরী ইউপির যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইমান হোসেন-কে গতকাল (শনিবার) ১ জানুয়ারী ২০২২ খ্রিস্টাব্দে রাত আনুমানিক ৯টায় অপহরণ করে। মো. ইমান হোসেন (৩০) বড়বিল রমিজ মিয়ার ছেলে। পুলিশ বাড়ীর অদূরে জঙ্গল থেকে তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেল পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেছে। এদিকে তার অপহরণ খবরে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে মানিকছড়িতে।

অপহৃত মো. ইমান হোসেনের ছোট ভাই কলেজ ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. আকতার হোসেন জানান, আমার ভাই ইউনিয়ন যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইমান হোসেন একজন সহজসরল ও শান্তপ্রিয় ব্যক্তি। কারো সাথে তার ব্যবসায়ীক ও রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব কিংবা বিভেদ নেই।

মো. ইমান হোসেন-এর পারিবারিক সূত্র মতে জানা যায়, ইমান হোসেন অপহরণের ঘটনার সাথে পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সন্ত্রাসী সংগঠন ইউপিডিএফ প্রসিত মূল জড়িত থাকতে পারে।

মানিকছড়ি থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোহাম্মদ শাহনূর আলম অপহরণের বিষয়ে বলেন, পারিবারিকভাবে বিষয়টি অবহিত হয়ে অপহৃত ব্যক্তির মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করেছে পুলিশ। গভীরভাবে বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ । যদিও এখনো অপহৃত ব্যক্তির পক্ষে কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি।

বাঙ্গালী অপহরণের ঘটনায় মানিকছড়ি উপজেলার বাঙ্গালী সংগঠনের নেতা মো. মোক্তার হোসেন তীব্র নিন্দা জানিয়ে অতিবিলম্বে ইমান-কে উদ্ধার করে জড়িত উপজাতি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

যুবলীগ নেতা অপহরণের খবর ছড়িয়ে পড়লে তার বাড়ি বড়বিলে আত্মীয়- স্বজন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ছুটে যান। প্রায় দু’শতাধিক বাঙ্গালী জড়ো হয়। এ সময় তার চাচা সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান ফারুক ও উপজেলা চেয়ারম্যান এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. জয়নাল আবেদীন সবাইকে সান্ত্বনা দেন এবং বিষয়টি মৌখিকভাবে পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে জানানো হয়েছে। এ নিয়ে প্রশাসন কাজ করছে বলে সবাইকে ধৈর্য ধারণের অনুরোধ করেন।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইউপিডিএফ নিয়ন্ত্রিত ফেসবুক আইডি ও নিউজপোর্টাল Chtnews উস্কানিমূলক সংবাদপ্রকাশ করে পাহাড়ি-বাঙ্গালীর মধ্যেই সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাহাঙ্গামা সৃষ্টির পায়তারা করছে।

By admin

মতামত

x