পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের শিক্ষাবৃত্তির বৈষম্য সমাচার!

সোলার প্যানেল, সেলাই মেশিন ও গরু-ছাগল বিতরণ এবং উন্নয়নমূলক বরাদ্দসহ ধর্মীও বরাদ্দ গুলোও উপজাতি মুখী হয়।

0
196

মোঃ সোহেল রিগ্যান- নিখিল কুমার চাকমা যে উগ্র সাম্প্রদায়িক ব্যক্তি তা কী রাষ্ট্রের নীতিনির্ধারকগণ জানেন না?

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদ বা দায়িত্বে নিখিল কুমার চাকমার মত উগ্র সাম্প্রদায়িক ব্যক্তিকে চেয়ারম্যান করার কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামে সাম্প্রদায়িক অশান্তি বিরাজ করছে। এ অঞ্চলের শান্তি-সম্প্রীতি, উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রাসহ সহবস্থান বিঘ্নিত হচ্ছে। এমন একজন উগ্র সাম্প্রদায়িক ব্যক্তি কীভাবে চেয়ারম্যান হলো তা আমার বোধগম্য নয়! রাষ্ট্রের নীতিনির্ধারকগণ উপজাতিদের বিচ্ছিন্নতাবাদ ও সন্ত্রাসবাদকে বরাবরই রাষ্ট্রের জন্য হুমকিস্বরূপ না দেখে তাদের প্রতি উদারতা ও সহনশীলতা এবং ক্ষমা প্রদর্শন কিন্তু এই নিখিল কুমার চাকমারা রাষ্ট্রের দূর্বলতা হিসেবে দেখেন। তারই সুযোগে নিখিল কুমার চাকমারা পার্বত্য বাঙ্গালীদের মানুষ মনে করেনা। দুঃখটা এখানেই এর সাথে কিছু মীরজাফর বাঙ্গালীও তাদের সাথে ঢেকুর তুলে! জনসংখ্যার অনুপাতে পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড়ি-বাঙ্গালী সমানে সমান। পরিসংখ্যান উল্লেখ করলে- বাঙ্গালী ৫০.০৬% আর উপজাতি (পাহাড়ি) ৪৯.৯৪%। রাঙ্গামাটিতে উপজাতি ছাত্র-ছাত্রী ৫৫০ জন দিলেও তার বিপরীতে মাত্র ২০১ জন বাঙ্গালী ছাত্র-ছাত্রীদের দেওয়া হয়েছে৷ যা শুধু দুঃখ প্রকাশ করে শেষ করলে হবেনা এটা মূলত বাঙ্গালীদের সঙ্গে বৈষম্য, অনিয়ম ও অবিচার।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ হইতে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে ২১৮৩ জন ছাত্র-ছাত্রীকে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। এরমধ্যে উপজাতি ১৫৮৩ জন আর বাঙ্গালী পেয়েছে মাত্র ৬০০ জন।

এই বৈষম্যগুলো শুধু এখানে শেষ নয়- পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের বিভিন্ন সহায়তায়মূলক কর্মসূচীতে এমন বৈষম্য থাকে- সোলার প্যানেল, সেলাই মেশিন ও গরু-ছাগল বিতরণ এবং উন্নয়নমূলক বরাদ্দসহ ধর্মীও বরাদ্দ গুলোও উপজাতি মুখী হয়। নিখিল কুমার চাকমাকে উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান করার পর থেকেই বৈষম্য দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান থাকাকালীন নিখিল কুমার চাকমা জাত চিনিয়েছে। সেই নিখিল চাকমাকে এতোবড় গুরুত্বপূর্ণ পদে বসানো রাষ্ট্রের নীতিনির্ধারকদের চরম ভুল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here